• বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন

অসুস্থ্যতা নিয়ে রাজনীতি, কেইবা পছন্দ করবে ?

Reporter Name / ২২৮ Time View
Update : শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২৩

অ্যাডভোকেট আবু মহী উদ্দীন

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া দারুণ অসুস্থ। আইনী জটিলতায় তিনি উন্নতর চিকিৎসার জন্য প্রয়োজন হলেও বিদেশ যেতে পারছেন না। যারা চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠাতে পারবেন তাদেরও ক্ষত রয়েছে। তাদের সামনে জলজল করছে ২১ আগষ্ট। এ জন্য কাউকে খাতির না করলে কারো বলার কিছু নাই। অতীত ঘটনার জন্য প্রতিহিংসা দেখালে তাতে দোষ দেওয়া যাবে না। জাতির জীবনে ২১ আগষ্ট না আসলে হয়তো অবস্থা অন্যরকম হতো। ভাবুনতো , ২১ আগষ্টের মূল অভিযান সফল হলে দেশ আজ কোথায় থাকতো ? আমরা তো হাতেম তা-ঈ বা খলিফা হারুন – অর- রশিদ নই।

আমি রাজনীতি করি না। কিন্তু জীবন সায়াহ্নে এসে রাজনীতির কিছু কিছু বুঝতে হচ্ছে। মরিচ, পেঁয়াজ , মাছ , ডিম, সাবানের দাম বাড়লে আমাকেও স্পর্শ করে। ঔষধের দাম বাড়লে বেশি স্পর্শ করে। রাশিয়া ইউক্রেনের যুদ্ধ , ডলারের দাম বাড়ার কারণে শিক্ষিত লোক হিসাবে বাধ্য হয়ে মেনে নিতে হয়। কিন্তু সহজ সরল বানিজ্য মন্ত্রী যখন সরল স্বীকারোক্তি দেন , সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয় তখন মনে প্রশ্ন জাগে। দেশের আলু কেনার লোক নাই, আলুর দাম বাড়ে, তখন সম্মান রাখতে পারিনা। বিরোধী দল এসব কথা মিউ মিউ করে বলে। বিরোধী দল এখন পর্যন্ত একটা কোল্ড স্টোর ঘেরাও করেনি। প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ আর তত্বাবধায়ক ছাড়া বিরোধী দল আর কোন সমস্যা চিহ্নিত করতেই পারেনি।

বেগম খালেদা জিয়া চিকিৎসা নিয়ে আমার নিজস্ব মূল্যায়ন আছে। মতামতটা একেবারেই আমার ব্যক্তিগত। আমার এই বক্তব্যে কোন দলের প্রতি রাগ বা অনুরাগ বা বিরাগ হিসাবে চিহ্নিত করবেন না। বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন থেকে অসুস্থ্য। তার অসুস্থতার যা গতি প্রকৃতি তাতে ক্রমাগত তার জীবন সংশয়ের আশংকা রয়েছে। তার কারণ হতে পারে , আমাদের দেশে সেই বিষয়ে চিকিৎসা নেই , অথবা কোন ডাক্তার সাহস পায়না, বা সেই চিকিৎসা করার কোন যোগ্য ডাক্তার নেই। তার সর্বশেষ অবস্থা লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করতে হবে। আমাদের দেশে লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করার ডা. আছে। হয় তিনি সাহস করেন না অথবা বিএনপি তার চিকিৎসায় ভরসা পান না।

বিএনপি খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি করছে বলে সরকারী দল নিয়মিত বলে। বিষয়টি খুবই অমানবিক। বিএনপি যদি খালেদা জিয়ার চিকিৎসার উপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিত তা হলে যা করতে পারতো , তা হলো আন্দোলন , ধর্মঘট , মিছিল সমাবেশ , হরতাল দিতো। এসব তারা করেছে। এর পরের করণীয় বিদেশ নেওয়ার দাবী করা। তারপর যখন চলেছে আইনী জটিলতার কারণে তাকে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেওয়া যাবেনা। তখন দাবী করার ছিল , তাহলে বিদেশ থেকে ডাক্তার আনা হোক। যে দেশে চিকিৎসা হয় সেই দেশ থেকে ডাক্তার যন্ত্রপাতি এনে চিকিৎসা করা হোক।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের অসুস্থ হয়ে সিঙ্গাপুর থেকে চিকিৎসা করে আসার পর ফলোআপ করার জন্য বিশ্ব বিখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ও সার্জন ডা. দেবী শেঠীকে আনা হয়েছিল। ডা. দেবী শেঠীর যখন দরকারই হলো নিশ্চিন্ত হওয়ার জন্য তাহলে প্রথমে তার কাছেই নেওয়া যেতো। প্রমান হলো ফলোআপ করার জন্য ডাক্তার আমরা তৈরি করতে পারিনি অথবা ডাক্তারদের সুযোগ দিইনি অথবা আস্থাই নাই।

বেগম খালেদা জিয়ার জন্য তা কি করা যেতো না। অথবা সরকারের কাছে দাবী ও আন্দোলন হতো বেগম খালেদা জিয়ার জন্য যে চিকিৎসা দরকার দেশের যে কোন হাসপাতালকে সেই ভাবে তৈরি করা। আমার বিশ্বাস বেগম খালেদা জিয়া যতদিন ধরে অসুস্থ্য ততদিনে এই চিকিৎসার জন্য একটা হাসপাতালই তৈরি করা যেতো। এতে খালেদা জিয়ার চিকিৎসাও হতো , চিকিৎসা ব্যবস্থার সক্ষমতা বাড়তো, দেশের মানুষও উপকৃত হতো।

বিএনপির উচিত ছিল বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার উপর সর্বাধিক অগ্রাধিকার দেওয়া। তার অসুস্থতাকে পুঁজি করে রাজনীতি করা আমরা পছন্দ করলাম না। বেগম জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে ডাক্তার সাহেবরা সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এটা গ্রহণযোগ্য নয়। সংবাদ সম্মেলন করা হতেই পারে, তা করবে তার স্বজনরা। বছরের পর বছর বাঘা বাঘা চিকিৎসকরা চিকিৎসা করছেন, আপনারা পরবেন না তো প্রথমেই বলে দিতেন, আপনাদের দ্বারা সম্ভব নয়। আপনাদের হাত পাকানোর প্রয়োজন ছিল না।

বেগম জিয়া অন্য হাসপাতালে যেতেন। অথবা সরকার ব্যবস্থা করতো। বিএনপি গোঁ ধরেছিল এভার কেয়ার হাসপাতাল ছাড়া দেশে আর কোন হাসপাতাল নাই, ডাক্তারও নাই। এভার কেয়ার হাসপাতাল কত বড়ো মাপের হাসপাতাল তা আমি জানিনা ও টা আমি দেখিওনি। এই হাসপাতালের ডাক্তার সাহেবদের চিকিৎসা নিয়ে আমার মনে কিছু প্রশ্ন জেগেছে। গত ২ বছর ধরে আমি এই প্রশ্নের জবাব খোজার চেষ্টা করছি।

জেলখানা থেকে বের হয়ে প্রথম চিকিৎসায় কয়েক মাস বেগম জিয়া সেবার হাসপাতালে ছিলেন। চিকিৎসা শেষে সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরেছিলেন। মাস দুয়েক পর আবার তিনি হাসপাতালে আসলেন । এবারে ডাক্তার সাহেবরা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানতে পারলেন বেগম জিয়ার হার্টে ব্লক হয়েছে, হার্ট ব্লকেজের চিকিৎসা ওপেন হার্ট সার্জারী অথবা রিং পড়ানো। বেগম জিয়াকে রিং পড়ানো হলো। আমার প্রশ্নটা এখানেই। যে কোন মানুষ অসুস্থ্য হয়ে হাসপাতালে আসার সাথে সাথে প্রথমেই রোগির হৃদযন্ত্র পরীক্ষা করা হয়। এরপর অন্যান্য বিষয়ে পরিক্ষা নিরীক্ষা করা হয় এবং সে মোতাবেক চিকিৎসা চলে। এখানে আরো চিকিৎসার ব্যবস্থা না থাকলে তাকে রেফার করা হবে। তখনইতো হার্ট ব্লক ধরার পড়ার কথা।

সার্বিক চিকিৎসা শেষে সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিরলেন। আমরা আশ্বস্ত হয়েছিলাম। প্রশ্নটা একারণেই যে, হার্টের ব্লকেজ তো ২/৪ দিনে হয় না। কয়েক বছর লাগে। তার ব্লকেজতো আগে থেকেই ছিল। তাহলে প্রথম চিকিৎসার আমাদের দিগগজ ডাক্তার সাহেবরা কি পরীক্ষা নিরীক্ষা করলেন। তখন হার্টের ব্লকেজ ধরা পড়লোনা কেন ? ডাক্তার সাহেবরা কি হাত পাকালেন ?

উপসংহারে আমি দাবী করতে চাই , বিএনপি, বেগম জিয়া অসুস্থতাকে পুজি করে রাজনীতি করছে যা খুবই অমানবিক। আরো একটি বিষয় আমাকে ভাবিয়ে তোলে তা হলো বেগম জিয়ার একমাত্র ছেলে প্রায় ১৫ বছর ধরে লন্ডনে আছেন, তার মা একটা দেশের ৩ বারের প্রধানমন্ত্রী এবং একটি জনপ্রিয় রাজনৈতিক দলের প্রধান তিনি অসুস্থ্য। তারেক জিয়াতো লন্ডনে থেকে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে , আমেরিকার দেশে তার মায়ের চিকিৎসার জন্য জনমত তৈরি করতে পারতেন। বিভিন্ন রাষ্ট্রনায়কের সাথে সাক্ষাৎ করতে পারতেন।

৭১ সালে দেশের স্বাধীনতার জন্য বাংলাদেশের প্রবাসী সরকার করেছিল। তাওতো দেখলাম না। আবার দেশে ফেরার জন্য কোন কোন চেষ্টাও করেননি। রাজনীতি করবেন, ভবিষ্যতে রাষ্ট্রনায়ক হবেন অথচ জেলে যাওয়ার জন্য সাহস করবেন না তাতো হবে না। তার তো জানার কথা কোন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব বাইরের চেয়ে জেল খানায় অন্তরীণ থাকলেই বেশী শক্তিশালী।

আমার এই বিশ্লেষন আমেরিকার ভিসানীতির মতোই হবে। বিএনপি অখুশী হবে , আর আওয়ামী লীগের সমর্থকরা বাকবাকুম করবে। আমি এমন পর্যায়ের কেউ নই যে আমার এই লেখায় দেশের তাবৎ মানুষ রাস্তায় নামবে। দলকানা না হয়ে নিরপেক্ষ হোন দেশের উপকার হবে।

শেষে বলি চিকিৎসা পাবার অধিকার দেশের সকল নাগরিকের আছে। বেগম জিয়ারতো আরো বেশী। তিনি চিকিৎসা বঞ্চিত হলে আমরা সাধারণ নাগরিকদের অবস্থা সহজেই অনুমেয়। আইনে কোথায় কি লেখা আছে সব আমরা জানিনা। তবে আইনতো মানুষের প্রয়োজনে তৈরি হয়েছে। প্রয়োজনে আইনতো সংশোধনযোগ্য। বেগম খালেদা জিয়া সরকার প্রধান ছিলেন। রাজনৈতিক সিদ্ধান্তে তার অপরাধ থাকতেও পারে। সে সবের বিচার হবে, প্রয়োজনে মরনোত্তর বিচার হবে। কিন্তু তিনি চিকিৎসা বঞ্চিত হবেন এটা সমর্থনযোগ্য নয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/