• বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
গণমাধ্যমকে দেশ ও জনগণের স্বার্থে দাঁড়াতে হবে -তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড় রেমালের আঘাতে লন্ডভন্ড হয়ে গেছে কয়রা শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে প্রচার যুদ্ধ, চেয়ার দখলে দ্বিমুখী লড়াই ঠাকুরগাঁওয়ে কিশোর গ্যাংয়ের ৩ সদস্য গ্রেফতার নদী রক্ষার যুদ্ধে আমরা বিজয়ী হব-নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী গাড়িচালক মুকুলের পরিবারের মাঝে অর্থ ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ আজিজ ও বেনজীরের বিচার করলে হবে না; আশ্রয় দাতাদেরও বিচার করতে হবে পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ফেনসিডিলসহ ৩ মাদক ব্যবসায়ি গ্রেফতার ঠাকুরগাঁওয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই ভাইয়ের মৃত্যু সংকোচ না করে আমাকে ডাকবেন, পরামর্শ দিবেন-এমপি সুজন

অসুস্থ হয়ে পড়ছেন শিক্ষার্থীরা, দুইজনের মৃত্যু,পাঁচ জেলায় স্কুল বন্ধ

Reporter Name / ৩৭ Time View
Update : রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২৪
ছবি-ইন্টারনেট।

সারাদেশে চলছে তীব্র তাপপ্রবাহ। প্রচণ্ড গরমে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। প্রতিদিনই দেশের কোথাও না কোথাও হিটস্ট্রোকে মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। খুব দ্রুত বৃষ্টির কোনো আশ্বাস দিতে পারেনি আবহাওয়া অধিদপ্তর। এই অবস্থা চলতে পারে আরও অন্তত এক সপ্তাহ। দেশে চতুর্থ দফায় হিট অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। এর মধ্যে গতকাল রোববার থেকে খোলা হয়েছে দেশের সব স্কুল-কলেজ, মাদরাসাসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

এদিকে দেশে চলমান তাপদাহের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আবহাওয়া অধিদপ্তরের সাথে পরামর্শক্রমে ঢাকা, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, খুলনা ও রাজশাহী জেলার সকল মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আজ সোমবার বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আরেকটু অপেক্ষা করা উচিত ছিল। এখনই এই সিদ্ধান্তে আসা ঠিক হয়নি। অন্তত আর একটা সপ্তাহ প্রাইমারি স্কুল বন্ধ রাখা উচিত ছিল। অভিভাবকরাও বিদ্যমান তাপপ্রবাহের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এদিকে গতকাল রোববার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার প্রথম দিনেই প্রচণ্ড গরমে সারাদেশের বিভিন্ন স্থানে অনেক শিক্ষক-শিক্ষার্থীই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। এরমধ্যে যশোরে আমদাবাদ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আহসান হাবিব ও চট্টগ্রামের কালুরঘাটের মাদরাসা শিক্ষক মাওলানা মো. মোস্তাক আহমেদ কুতবী আল কাদেরী মৃত্যুবরণ করেছেন।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন জেলায় শত শত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। নোয়াখালীতে গরমে এক শিক্ষক ও ১৪ শিক্ষার্থী অসুস্থ। মুন্সীগঞ্জ জেলার টঙ্গীবাড়ীতে শ্রেণিকক্ষেই অজ্ঞান হয় এক শিক্ষার্থী।

অভিভাবকরা বলছেন, অধিকাংশ স্কুলে এয়ার কন্ডিশনার নেই। পাশাপাশি বাচ্চাদের স্কুলে আনা নেওয়া করতে রিকশা-সিএনজিসহ নানা ধরনের যানবাহন ব্যবহার করতে হয়। এতে দীর্ঘ সময় রোদ্রের মধ্যে রাস্তায় থাকতে হয় শিশুদের। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এই ধরনের সিদ্ধান্তে অনেক বাচ্চা রাস্তায় অসুস্থ হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক অভিভাবক ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। তারা বলছেন, আর এক সপ্তাহ স্কুল বন্ধ রাখলে কি ক্ষতি হবে? কিন্তু এই তাপমাত্রার মধ্যে বাচ্চারা স্কুলে গেলে বরং ক্ষতি বেশি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

শিশু হাসপাতালের সাবেক পরিচালক শিশু বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. সফি আহমেদ বলেন, এই তাপমাত্রার মধ্যে শিশুদের কোনভাবেই ঘর থেকে বারহওয়া উচিত না, তীব্র তাপপ্রবাহের মধ্যে শিশুরা বাইরে গেলে নানা ধরনের রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হতে পারে। ফলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত স্কুল বন্ধ রাখাই ভালো। বৃষ্টি হওয়ার পর তাপমাত্রা কিছুটা কমতে পারে। তখন স্কুল খুললে ভাল হতো। এখন যেহেতু স্কুল খোলা হচ্ছে, তাই বাচ্চাদের পোশাক, স্কুলের পরিবেশসহ আনুষঙ্গিক সব বিষয়ে খোঁজ রাখতে হবে।

৫ জেলায় আজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ: দেশে চলমান তাপদাহের কারণে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আবহাওয়া অধিদপ্তরের সাথে পরামর্শক্রমে ঢাকা, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, খুলনা ও রাজশাহী জেলার সকল মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আজ সোমবার বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানান। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শীতাতাপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা আছে সেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ চাইলে খোলা রাখতে পারবে। এছাড়া আজ পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

চট্টগ্রামে হিটস্ট্রোকে মাদরাসা শিক্ষক ও প্রবাসীর মৃত্যু

চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, চট্টগ্রামে হিটস্ট্রোকে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে বোয়ালখালীতে মাদরাসায় যাওয়ার পথে কালুরঘাট সেতু এলাকার ফেরিতে এক মাদরাসা শিক্ষক ইন্তেকাল করেন। আগের দিন শনিবার সন্ধ্যায় নগরীর কাট্টলীতে মারা যান ইতালি ফেরত এক প্রবাসী। বোয়ালখালী থেকে সংবাদদাতা জানান, ফেরিতে হিটস্ট্রোকে মাওলানা মো. মোস্তাক আহমেদ কুতুবী আলকাদেরী নামের এক মাদরাসা শিক্ষক ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাহে রাজেউন)। তিনি বোয়ালখালী উপজেলার খিতাপচর আজিজিয়া মাবুদিয়া আলিম মাদরাসায় কর্মরত ছিলেন।

মাদরাসা খোলার প্রথম দিনে তিনি নগরীর চান্দগাঁও মোহরা এলাকার বাসা থেকে কর্মস্থলের দিকে আসছিলেন। সকাল ৯টার দিকে কালুরঘাটের পশ্চিম পাড় থেকে হেঁটে ফেরিতে উঠেন ওই শিক্ষক। এরপর হঠাৎ ফেরিতে অচেতন হয়ে ঢলে পড়েন তিনি।

তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। মাওলানা মো. মোস্তাক আহমেদ কুতুবী আলকাদেরী কক্সবাজার জেলার কুতুবদিয়া লেমশীখালীর মৃত খলিলুর রহমানের পুত্র। তার দুই ছেলে ও মেয়ে রয়েছে। মাদরাসা শিক্ষক মোস্তাক আহমেদ কুতুবী আলকাদেরীর ইন্তেকালে বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীন চট্টগ্রামের নেতৃবৃন্দ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। তারা তার শোকাহত পরিবারের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানান।

এদিকে নগরীর উত্তর কাট্টলী সিটি গেইট চান মিয়া ডাক্তার বাড়িতে ইতালি ফেরত লিয়াকত আলী হিটস্ট্রোকে ইন্তেকাল করেন। তিনি ওই বাড়ির মরহুম শের আলীর তৃতীয় পুত্র। এক সপ্তাহ আগে তিনি ইতালিতে থেকে বাড়ি আসেন। শনিবার সন্ধ্যায় তিনি অচেতন হয়ে পড়ে যান। দ্রুত তাকে নগরীর মেট্টোপলিটন হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকেরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। চিকিৎসকের বরাত দিয়ে পরিবারের সদস্যরা জানান তিনি অতিরিক্ত গরমে হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

নোয়াখালীতে এক শিক্ষক ও ১৪ শিক্ষার্থী অসুস্থ

নোয়াখালী জেলা সংবাদদাতা জানান, প্রচণ্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ ও হাতিয়া উপজেলার দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৪ জন শিক্ষার্থী এবং একজন শিক্ষক। অসুস্থদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে নিজ-নিজ বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে বেগমগঞ্জের জয়নারায়ণপুর ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসা ও হাতিয়া জনকল্যাণ শিক্ষা ট্রাস্ট হাই স্কুল এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বেগমগঞ্জ উপজেলার আমান উল্যাপুর ইউনিয়নের জয়নারায়ণপুর ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসা চতুর্থ শ্রেণির একজন ছাত্রী প্রথমে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে একই শ্রেণির আরও তিন ছাত্রী প্রচণ্ড গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরে বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা তাদের স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। মাদরাসার অধ্যক্ষ মো. মিজানুর রহমান জানান, প্রচণ্ড গরমের কারনে ৪ ছাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাদের চিকিৎসা দিয়ে নিজ নিজ বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। অপর শিক্ষার্থীদের বেশি বেশি পানি খাওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

অপরদিকে, সকাল সোয়া ১০টার দিকে হাতিয়া জনকল্যাণ শিক্ষা ট্রাস্ট হাই স্কুলের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ১১জন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে পড়ে। এর কিছুক্ষণ পর গরমে অসুস্থ হয়ে পড়েন ওই বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক ইমরান হোসেন। পরে তাদের সবাইকে বিদ্যালয় পাশ^বর্তী মা-মনি ক্লিনিকের একজন স্বাস্থ্য সহকারিকে এনে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। এসময় অন্য সকল শ্রেণির শিক্ষার্থীদের স্যালাইন ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করা হয়।

স্থানীয়রা বলছেন, বিদ্যালয়টির যেসব কক্ষে পাঠদান চলে সেগুলো টিন শেডের। যার ফলে ওই কক্ষগুলোতে পাঠদানের সময় প্রচণ্ড গরমে শিক্ষার্থীরা হাঁসফাঁস করে। তার মধ্যে বিদ্যুতের লোডশেডিং এর সমস্যাতো আছেই। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) ফাতেমা ইসরাত ডলি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, পাঠদান শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পর ষষ্ঠ শ্রেণির একে একে এগার জন শিক্ষার্থীর মাথা ব্যাথা, পেট ব্যাথা দেখা দেয়।

তাদের অসুস্থতার কারণ প্রচণ্ড গরম বিষয়টি আমরা বুঝতে পেরে দ্রুত পাশ^বর্তী মা-মনি ক্লিনিক থেকে একজন স্বাস্থ্য-সহকারিকে এনে তাদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। আমাদের একজন সহকারি চিকিৎসকও অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাদের সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে বাড়ি পাঠানো হয়েছে।বিদ্যালয়টির নতুন ভবনের কাজ চলমান থাকায় বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের টিন শেডের কক্ষে পাঠদান নিতে হচ্ছে। এরমধ্যে গরমের মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় অনেক বেগ পেতে হচ্ছে।

শ্রেণিকক্ষেই অজ্ঞানশিক্ষার্থী

মো. রনি শেখ, টঙ্গীবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) থেকে জানান, মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ীতে প্রখর তাপদাহে প্রচণ্ড গরমে বিদ্যালয়ে ক্লাস চলাকালে শ্রেণিকক্ষে সুমি আক্তার (১৪) নামে ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী অজ্ঞান হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গতকাল দুপুরে উপজেলার হাসাইল বানারী ইউনিয়নের বানারী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে ক্লাস চলাকালে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পরপরই ওই শিক্ষার্থীকে টঙ্গীবাড়ী স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে যায় বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। শিক্ষার্থী সুমি আক্তার হাসাইল বানারী ইউনিয়নের আটিগাও গ্রামের সুমন মুন্সীর মেয়ে।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বানারী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ কায়েসুর রহমান জানান, তীব্র গরমে আমাদের বিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রী অজ্ঞান হয়ে গেলে আমরা সাথে সাথে ওই তাকে টঙ্গীবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে যাই। বর্তমানে ওই শিক্ষার্থী অনেকটাই সুস্থ আছে।

ভূঞাপুরে শ্রেণিকক্ষে জ্ঞান হারান মাদরাসাশিক্ষক

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) উপজেলা সংবাদদাতা জানান, প্রচণ্ড তাপদাহে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে শ্রেণিকক্ষে ক্লাস চলাকালীন হিটস্ট্রোকে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন মো. জহিরুল ইসলাম নামে এক মাদরাসা শিক্ষক। তিনি উপজেলার রাউৎবাড়ী দাখিল মাদরাসার সহকারী মৌলভী শিক্ষক। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। মাদরাসার সুপার ও বাংলাদেশ জমিয়াতুল মোদার্রেছীন ভূঞাপুর উপজেলা শাখা’র সভাপতি মাওলানা মো. আফছার আলী এ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান- ‘ক্লাস শেষে অফিসরুমে আসে জহিরুল ইসলাম। পরে তিনি হঠাৎ জ্ঞান হারান এবং কথা বলা বন্ধ হয়ে যায় তার। পরে তাৎক্ষণিক মাথায় পানি ঢাললে ১০ মিনিট পর তার জ্ঞান ফিরে আসে। এ ঘটনায় উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো. মনিরুজ্জামান বলেন- ‘তীব্র গরমে হিটস্ট্রোক করে মাদরাসা শিক্ষক জ্ঞান হারানোর বিষয়টি জানা নেই। এ ব্যাপারে আমি খোঁজ নিচ্ছি।’

আরএম/ টাঙ্গন টাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/