• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন

অগ্নিকাণ্ড থেকে জীবন ও সম্পদ রক্ষার পথ কী?

টাঙ্গন টাইমস ডেস্ক / ১৩৫ Time View
Update : শুক্রবার, ১ মার্চ, ২০২৪
ছবি- ইন্টারনেট

প্রতিটি অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা অগ্নিনিরাপত্তা বিষয়ে কর্তৃপক্ষের অবহেলা, অব্যবস্থাপনা ও প্রস্তুতিহীনতার প্রকৃষ্ট উদাহরণ। কোনো স্থাপনায় আগুন বড় আকারে জ্বলে উঠলে সর্বোচ্চ মানের অগ্নিনির্বাপণ ব্যবস্থায়ও সেখানে অবস্থানকারী ব্যক্তিদের মৃত্যু ও আহত হওয়া এড়ানো দুরূহ হয়ে ওঠে।

বিশেষজ্ঞদের দ্বারা স্থাপনার পূর্ণাঙ্গ অগ্নিনিরাপত্তার ব্যবস্থার নকশা করা ও তা যথাযথ পরিপালন করা এবং সেটা নিয়মিত পরীক্ষা ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে সেই স্থাপনা ব্যবহারকারীদের জীবন ও সম্পদের অগ্নিনিরাপত্তা বিধান করা সম্ভব। সবার এ বিষয়টির গুরুত্ব উপলব্ধি করা অত্যন্ত প্রয়োজন।

কোনো ভবনকে পর্যাপ্ত অগ্নিপ্রতিরোধক করতে হলে কয়েকটি সুনির্দিষ্ট ধাপ পরিপালন করা জরুরি। আগুন লাগার সম্ভাব্য কারণগুলো দূর করাই অগ্নিনিরাপত্তা বিধানের কার্যকর উপায়। এটা প্রতিরোধ। প্রতিরোধের সঙ্গে সঙ্গে সুরক্ষা ব্যবস্থাও রাখতে হবে। এ দুইয়ের সমন্বয়েই তৈরি হয় একটি পূর্ণাঙ্গ অগ্নিনিরাপত্তার ব্যবস্থা। কিছু ত্রুটি থাকা সত্ত্বেও আমাদের জাতীয় বিল্ডিং কোড অগ্নিনিরাপত্তার জন্য যথাযথ। এর পূর্ণ বাস্তবায়নে অগ্নিঝুঁকি ও হতাহতের সংখ্যা অনেকাংশে কমিয়ে আনা সম্ভব।

অগ্নিপ্রতিরোধের জন্য তিনটি জিনিসের একসঙ্গে থাকার দরকার হয়— জ্বালানি, বাতাস বা অক্সিজেন ও তাপ। কিন্তু এ তিনটি জিনিস একত্র হলেও আগুন ধরবে না যতক্ষণ পর্যন্ত না এ মিশ্রণে অগ্নিস্ফুলিঙ্গ সৃষ্টি না হয়।

সুতরাং ভবনে অগ্নিপ্রতিরোধের উপায় হতে পারে তাপ উৎপাদনকারী যন্ত্রপাতি সাবধানে রাখা; তাপ উৎপাদনকারী যন্ত্র পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখা; কোনো দাহ্য পদার্থ বা সূক্ষ্ম বস্তুকণা এ তাপের সংস্পর্শে না আসতে পারে, সেই ব্যবস্থা নেওয়া। ভবনে যেন কোনোভাবে অগ্নিস্ফুলিঙ্গ তৈরি না হয়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে। অবাঞ্ছিত অগ্নিস্ফুলিঙ্গের একটা বড় উৎস ভবনের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার ত্রুটিপূর্ণ নকশা, স্থাপনা ও রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থা এবং গ্যাস সরবরাহ। এক পরিসংখ্যানে জানা যায়, বাংলাদেশে সংঘটিত অগ্নিকাণ্ডের প্রায় ৭৫ শতাংশের সূচনা ঘটে বিদ্যুৎ থেকে।

ভবনের অগ্নি-সুরক্ষাব্যবস্থাকে দুটি ভাগে ভাগ করা যায়। সক্রিয় ব্যবস্থা ও অসক্রিয় ব্যবস্থা। সক্রিয় ব্যবস্থার একটি স্বয়ংক্রিয়, অন্যটি অস্বয়ংক্রিয় ফায়ার ডিটেকশন সিস্টেম বা অগ্নিশনাক্তকরণ ব্যবস্থায় স্বয়ংক্রিয় ও ম্যানুয়াল উভয় কৌশল থাকে। পুরো অগ্নিসুরক্ষা ব্যবস্থায় তাপ শনাক্তকরণ, ধোঁয়া শনাক্তকরণ ব্যবস্থা থাকতে হয়; এসব যন্ত্রের সাহায্যে অগ্নিকাণ্ডের একদম শুরুতেই তা শনাক্ত করে সতর্কসংকেত (অ্যালার্ম) দেওয়া, যেন ভবন ব্যবহারকারীরা অগ্নিকাণ্ডের শুরুতেই ভবন থেকে বেরিয়ে যেতে পারে। সক্রিয় ব্যবস্থার মধ্যে আরও থাকতে পারে ফায়ার এক্সটিংগুইশার, স্প্রিঙ্কলার, হোস পাইপ সিস্টেম ইত্যাদি, এগুলোর সাহায্যে আগুন নেভানো হয়। স্প্রিঙ্কলার সিস্টেম হলো স্বয়ংক্রিয়, যা আপনা–আপনি চালু হয়ে আগুন নির্বাপণ বা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে।

অসক্রিয় ব্যবস্থা হলো ভবনের এমন কিছু নির্মাণ বৈশিষ্ট্য, যা আগুনের বিস্তার রোধ করবে এবং ধোঁয়ার প্রভাবমুক্ত অবস্থায় বাসিন্দাদের নিরাপদ নির্গমন নিশ্চিত করবে। ভবনের কোথাও আগুন লাগলে তা যাতে ছড়িয়ে না যায়, করিডর এবং অগ্নি-বহির্গমন পথ (ফায়ার করিডর এবং সিঁড়িপথ) যাতে ধোঁয়া ও আগুন থেকে মুক্ত থাকে, একটি নির্দিষ্ট মাত্রার অগ্নিকাণ্ডের পরেও যাতে ভবনটি কাঠামোগতভাবে অন্ততপক্ষে কয়েক ঘণ্টা টিকে থাকে ইত্যাদি নিশ্চিত করা হয় অসক্রিয় ব্যবস্থার দ্বারা। ওপরে উল্লিখিত দুটি ব্যবস্থার সমন্বয়ের মাধ্যমেই একটি কার্যকরী অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থা গড়ে তুলতে হয়।

বেইলী রোডের অগ্নিকাণ্ডে অগ্নিসুরক্ষা ব্যবস্থার কোনোটিই নিয়মমাফিক ছিল না। এতগুলো প্রাণ অকালে ঝরে যাওয়ার কারণ বহুতল ভবনটির নকশায় জীবন-সুরক্ষার বিষয়টি উপেক্ষিত হয়েছে। এর জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর দায়িত্বশীলতা ও সদিচ্ছার অভাবকে দায়ী করা যায়। অগ্নিশনাক্তকরণ ব্যবস্থা ও পর্যাপ্ত অগ্নিবহির্গমন পথ থাকলে মানুষ আগুন লাগামাত্রই সতর্কসংকেত পেত এবং ভবন থেকে বেরিয়ে যেতে পারত। হয়তোবা দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনাও সম্ভব হতো। অবশ্য দাহ্য পদার্থ বেশি থাকলে আগুন শনাক্তকরণের পরও ম্যানুয়ালি আগুন নিয়ন্ত্রণ সম্ভব না–ও হতে পারে। কারণ, আগুন নির্দিষ্ট মাত্রায় পৌঁছে গেলে মানুষের পক্ষে শুধু পানি বা নির্বাপণযন্ত্র দিয়ে আগুনের কাছাকাছি গিয়ে নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হয় না। সঠিকভাবে অসক্রিয় ব্যবস্থার নকশা করা হলে আগুন দ্রুত অন্যান্য তলায় ছড়াতে পারত না।

আগুন বা ধোঁয়া সিঁড়িঘরেও ছড়াত না, ভবনের অধিবাসীদের নিরাপদ বহির্গমনের জন্য যা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এর সঙ্গে দাহ্য পদার্থের পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখা, ভবনের অভ্যন্তরীণ সজ্জায় অতি দাহ্য উপকরণের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে অগ্নিঝুঁকি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। ভবনের আকার ও তা ব্যবহারের ধরন বিবেচনা করে অগ্নিনিরাপত্তা–ব্যবস্থার অন্তর্গত ওপরে উল্লিখিত অগ্নিপ্রতিরোধ ও অগ্নিসুরক্ষা ব্যবস্থাসমূহের মধ্যে সমন্বয় সাধন করেই একটি কার্যকরী অগ্নিনিরাপত্তা–ব্যবস্থার নকশা–পরিকল্পনা করতে হয়।

নিম্নলিখিত প্রক্রিয়ায় অগ্নিনিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব : লাইন ও ক্যাবল হোল সিল করা : আধুনিক বহুতল ভবনগুলিতে শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা, হিটিং, বিদ্যুৎ এবং গ্যাস সংযোগের জন্য যে পাইপগুলো টানা হয়, সেগুলো যায় ডাক্ট লাইন এবং ক্যাবল হোলের ভেতর দিয়ে। এই ডাক্ট লাইন ও গর্ত দিয়ে ধোঁয়া এবং আগুন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। এজন্যে ডাক্ট লাইন ও ক্যাবল হোলগুলো আগুন প্রতিরোধক উপাদান দিয়ে ভাল করে বন্ধ করে দেয়া জরুরি।

ভবন নির্মাণে আগুন প্রতিরোধী উপাদান ব্যবহার : একটি ভবন নির্মাণের সময় কী ধরণের উপাদান ব্যবহার করা হচ্ছে তা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। ভূমিকম্প এবং আগুন লাগার মতো দুর্ঘটনা ঠেকাতে এ ধরণের উপাদান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এক্ষেত্রে দরজা এবং দেয়াল আগুন প্রতিরোধী হলে ভাল হয়। সিনথেটিক বা হাইড্রোকার্বন উপাদান থাকে এমন কোন পদার্থ দিয়ে ভবনের ভেতরের সাজসজ্জা না করাই ভালো।

কার্যকর অ্যালার্ম সিস্টেম রাখা : প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেয়ার পরও যদি কোন ভবনে আগুন লাগে তাহলে সেক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতিয়ে কমিয়ে আনার একটা উপায় হচ্ছে ফায়ার এবং স্মোক অ্যালার্ম সিস্টেম বসানো এবং সেটি ঠিক মতো কাজ করে কিনা তা নিয়মিত পরীক্ষা করা।

জরুরি বহির্গমন পথ নিশ্চিত করা : যেকোন ভবনেই আগুন লাগলে সেটি থেকে বের হয়ে আসার জন্য বাইরে একটা জরুরী বর্হিগমন পথ থাকতে হবে। এটা হতে হবে এমন একটি পথ যেখানে আগুন এবং ধোয়া প্রবেশ করতে পারবে না। কারণ কোন ভবনে আগুন লাগলে বা ভূমিকম্প হলে ওই ভবনের লিফট ব্যবহার না করার পরামর্শ দেয়া হয়। বেইলি রোডের উক্ত বিল্ডিংয়ে ফায়ার এক্সিট ছিল না বলে জানা গেছে।

ফায়ার এক্সটিংগুইশার রাখা ও তা ব্যবহার করা : প্রতিটি ভবনেই অগ্নি নির্বাপন সিলিণ্ডার বা ফায়ার এক্সটিংগুইশার থাকাটা নিশ্চিত করতে হবে। সেই সাথে এগুলো ব্যবহার করতে জানতে হবে ভবনের বাসিন্দাদের। কোন একটি ভবনে আগুন লাগার পর সেটি ছড়িয়ে পড়তে কিছুটা হলেও সময় লাগে। এই সময়ের মধ্যে যদি অগ্নিনির্বাপন ব্যবস্থা দিয়ে সেটি নিভিয়ে ফেলা যায় তাহলে বড় ধরণের দুর্ঘটনা এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব।

নিয়মিত মহড়া :

প্রাথমিকভাবে সবাইকেই জানতে হবে যে, ফায়ার এক্সটিংগুইশার কিভাবে ব্যবহার করতে হয়, আগুন লাগলে কিভাবে ফায়ার সার্ভিসকে ডাকতে হবে। ভবনে আগুন লাগলে সেখান থেকে কিভাবে বের হয়ে আসতে হবে তার জন্য নিয়মিত মহড়ার ব্যবস্থা করতে হবে। আগুন লাগলে কার কী দায়িত্ব তা আগে থেকেই ভাগ করে দিতে হবে। আগুন থেকে উৎপন্ন ধোয়া যাতে কেউ নিঃশ্বাসের সাথে গ্রহণ না করে, ভবন থেকে নামতে যাতে সিঁড়ি ব্যবহার করে, ভেজা তোয়ালে দিয়ে মুখ ঢেকে নিরাপদ স্থানে সরে যেতে হবে- এ বিষয়গুলো অবশ্যই জানতে হবে।

নতুন ভবনের ক্ষেত্রে সঠিক নকশা ও নির্মাণ পদ্ধতি অনুসরণ করলে অগ্নিনিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব। কিন্তু ইতোমধ্যে যেসব ভবন নির্মিত হয়েছে, সেগুলোর অগ্নিনিরাপত্তা কীভাবে নিশ্চিত করা যায়? এটা বর্তমানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। ইতোমধ্যে নির্মিত অধিকাংশ ভবনের কাঠামোগত পরিবর্তন জটিল ও ব্যয়বহুল, পারফরম্যান্স-বেইজড রেট্রোফিটিং করা যেতে পারে। আমাদের শহরগুলোতে বিশেষত সুউচ্চ ভবনের এলাকাগুলোতে ফায়ার হাইড্রেন্ট স্থাপন এবং বিদ্যমান ভবনে পর্যাপ্ত পানির আধার নির্মাণ করা যেতে পারে।

আগুন ও ধোঁয়া যাতে ছড়াতে না পারে এবং করিডর ও সিঁড়িঘরে যাতে আগুন ও ধোঁয়া ছড়াতে না পারে, সে জন্য পর্যাপ্ত ফায়ার সেপারেশন ও ধোঁয়া নির্গমনপথের ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে। সুউচ্চ ভবনের ক্ষেত্রে ফায়ার লিফট রাখা বাধ্যতামূলক করা প্রয়োজন। বহুতল ভবনগুলোতে অগ্নিনিরাপত্তা পরিকল্পনা ও নিয়মিত ফায়ার ড্রিল অনুশীলনের ব্যবস্থা রাখতে হবে। নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে রাজউক এবং ফায়ার সার্ভিস বিভাগ নিয়মিত তদারকির মাধ্যমে ফায়ার সনদ দেওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

লেখক : সাংবাদিক

[নিবন্ধ, সাক্ষাৎকার, প্রতিক্রিয়া প্রভৃতিতে প্রকাশিত মতামত লেখকের নিজস্ব। দৈনিক কালবেলার সম্পাদকীয় নীতির সঙ্গে নিবন্ধ ও সাক্ষাৎকারে প্রকাশিত মত সামঞ্জস্যপূর্ণ নাও হতে পারে। প্রকাশিত লেখাটির ব্যাখ্যা বা বিশ্লেষণ, তথ্য-উপাত্ত, রাজনৈতিক, আইনগতসহ যাবতীয় বিষয়ের দায়ভার লেখকের, টাঙ্গন টাইমস কর্তৃপক্ষের নয়।]

আরএম/টাঙ্গন টাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/