• সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে মহিলা পরিষদের সংবাদ সম্মেলন

Reporter Name / ১৮৩ Time View
Update : শনিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২৩

ঢাকা প্রতিনিধি

ঢাকা: নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতার মাত্রা ক্রমাগতই বৃদ্ধি পাচ্ছে, এর সঙ্গে বাড়ছে বর্বরতার ধরণ। যদিও নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সরকার, উন্নয়ন সংগঠন, নারী ও মানবাধিকার সংগঠন, নারী আন্দোলন বহুমাত্রিক কাজ করে যাচ্ছে। পরিস্থিতি উত্তরণে নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে ‘সমন্বিত বিনিয়োগ’ অপরিহার্য বলে মনে করে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

শনিবার (২৫ নভেম্বর) বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের উদ্যোগে জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এসব দাবি তুলে ধরেন। ‘নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতা বন্ধে এগিয়ে আসুন, সহিংসতা প্রতিরোধে বিনিয়োগ করুন’- এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বিশ্ব মানবাধিকার দিবস পালন উপলক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের সভাপতি ডা. ফওজিয়া মোসলেমের সভাপতিত্বে এতে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন লিগ্যাল এইড সম্পাদক রেখা সাহা। সহিংসতার চিত্র তুলে ধরে তিনি বলেন, চলতি বছর জানুয়ারি থেকে অক্টোবর পর্যন্ত ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত খবর বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে মোট ২৫৭৫টি সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে । এর মধ্যে হত্যার ঘটনা ঘটেছে ৪৩৩টি এবং ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৩৯৭টি, যা অত্যন্ত উদ্বেগ জনক।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ উদ্বেগের সঙ্গে আরও লক্ষ্য করছে যে, বর্তমানে সময়ে অনলাইন যোগাযোগ মাধ্যমে ও জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক অভিঘাতের কারণে নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতাও বাড়ছে।’

লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়, ‘বিনিয়োগের ক্ষেত্র হিসেবে রাষ্ট্রের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের আইন-নীতিমালা-কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন, বিভিন্ন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের সক্ষমতা এবং সংবেদনশীলতা বৃদ্ধিতে জেন্ডার বাজেটে অর্থ বরাদ্দ বাড়ানো, বাজেটের যথাযথ বাস্তবায়ন, নারী ও কন্যার প্রতি সহিংসতার প্রকৃত তথ্য সংগ্রহ, সহিংসতার কারণ নির্ণয় এবং এর আলোকে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সরকার, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানকে গবেষণা করতে হবে।’

জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং অ্যাডভোকেসি শক্তিশালী করার ক্ষেত্রে নারীভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন, নারী আন্দোলনে আর্থিক সহযোগিতা বৃদ্ধিতে সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের ভূমিকা পালনের উপর জোর দিতে হবে। গণমাধ্যমসহ নাগরিক সমাজের ঐক্যবদ্ধ উদ্যোগ এই ক্ষেত্রে একটি বড় বিনিয়োগ বলেও মনে করে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডা. ফওজিয়া মোসলেম বলেন, ‘সম্প্রতি ধর্ষকের সাথে ধর্ষণের শিকার নারীর বিয়ের ঘটনা ঘটেছে যা আইনের বিধানে নেই। এতে নারীর আত্মমর্যাদার উপরে আঘাত আসে, তার নিরাপত্তাও বিঘ্নিত হয়। অন্যদিকে ধর্ষণের ঘটনাসহ বিভিন্ন সহিংসতার ঘটনা ও নানা হতাশাজনক অবস্থার কারণে কিশোর-কিশোরী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটছে। আত্মহত্যার ঘটনা প্রতিরোধে মানসিক সহায়তা, কাউন্সেলিং সেবার পরিধি বাড়াতে হবে।’

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সংগঠনের প্রোগ্রাম অফিসার (কাউন্সেলিং) সাবিকুন নাহার। এতে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দের মধ্যে সহ-সভাপতি রেখা চৌধুরী ও শাহানা কবির, সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সীমা মোসলেম ও অ্যাডভোকেট মাসুদা রেহানা বেগমসহ অন্য নেতা, সম্পাদকমণ্ডলী, কর্মকর্তা এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/