• রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন

রাণীশংকৈলে ‘কুলিক’ নদী রক্ষার দাবিতে মানববন্ধন

Reporter Name / ৪৪ Time View
Update : রবিবার, ১০ মার্চ, ২০২৪

রাণীশংকৈল (ঠাকুরগাঁও)প্রতিনিধি:
ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার উপর দিয়ে বয়ে গেছে ‘কুলিক’ নদী। এটি বাংলাদেশের উত্তরাংশের ঠাকুরগাঁও উপজেলা ও বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের বিল এলাকা থেকে উৎপন্ন হয়ে বাংলাদেশে হরিপুর উপজেলায় বাংলাদেশ অংশে পড়েছে।
বাংলাদেশের প্রবাহপথে বালিয়াডাঙ্গী, রাণীশংকৈল ও হরিপুর উপজেলায় রয়েছে। এছাড়াও নদীটি বাংলাদেশ-ভারতের একটি আন্তঃসীমান্ত নদী। রাজা টংকনাথের রাজপ্রাসাদ এই নদীর তীরে অবস্থিত। এটি বাংলাদেশের উত্তরবঙ্গ এবং ভারতের পশ্চিমবঙ্গ দিয়ে প্রবাহিত একটি নদী। যার দৈর্ঘ্য বাংলাদেশ অংশে ৬.৩৬ কি মি এবং ভারতের অংশে ৭৫.৬৪ কি মি। নদীটি ভুটডাঙ্গী এলাকায় প্রস্থ ১০০ মি এবং সেখানে এর গভীরতা ৩০ মি ও অববাহিকার আয়তন ১৫০ বর্গ কি মি।
একসময় এই নদীতে নৌকা, লঞ্চ, স্টিমার চললেও বর্তমানে এগুলো চলাচলের কোন দৃশ্য চোখে পড়ে না। সময়ের আবর্তনে একসময়ের চিরযৌবনা নদীটি হারিয়ে ফেলেছে তার স্বরূপ ও সৌন্দর্য।
কুলিক নদীর মূল ধারাকে দখলমুক্ত করা এবং প্রকৃতি ও জীববৈচিত্র রক্ষার দাবিতে শনিবার (৯ মার্চ) সকালে রাণীশংকৈল উপজেলা পরিষদের মূল ফটকে কুলিক নদী সুরক্ষা কমিটির ব্যানারে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
এতে কুলিক নদী সুরক্ষা কমিটির আহবায়ক রাণীশংকৈল ভাইস চেয়ারম্যান সোহেল রানার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন উপজেলা আ.লীগ সভাপতি অধ্যাপক সইদুল হক, কুলিক নদী সুরক্ষা কমিটির সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট মেহেদী হাসান শুভ, সাবেক পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিউল ইসলাম (ভিপি) প্রেসক্লাব সভাপতি মোবারক আলী, অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম, সহ-সভপতি হুমায়ুন কবির, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সম্পাদক আরথান আলী, যুগ্ন সম্পাদক জাকারিয়া হাবিব ডন, ছাত্রলীগ নেতা তামীম হোসেন প্রমুখ।
এসময় মানববন্ধনে বক্তারা দাবি জানিয়ে বলেন, রাণীশংকৈল পৌরসভার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত ‘কুলিক’ নদীতে ড্রেজার মেশিন দিয়ে খননকার্য পরিচালনা করে নদীর গভীরতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে হবে, নদীর দুই পাড়ের ভাঙ্গন রোধে ব্লকপাথর দিয়ে বাধাঁই করার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা, কুলিক নদীর দুই পাড়ে পর্যাপ্ত বৃক্ষ রোপন করার মাধ্যমে বনায়ন কার্যক্রম সৃষ্টির লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহন করা, নদীর দুই পাড়ের দখল উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনা করে নদীর সৌন্দর্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কুলিক নদীকে পর্যটক বান্ধব নদীতে রূপান্তরের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন, কুলিক নদীর পানিকে পরিষ্কার ও বিশুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহন করা, পৌরসভার ময়লা-আবর্জনা ও বর্জ কুলিক নদীতে ফেলা হইতে বিরত রাখতে হবে।
যেহেতু বাংলাদেশের নদ-নদী সমূহ দেশের জাতীয় সম্পন্ন এবং নদীর অবৈধ দখল, পানি ও পরিবেশ দূষন, শিল্প কারখানা কর্তৃক সৃষ্ট নদী দূষন, অবৈধ অবকাঠামো নির্মান ও নানাবিধ অনিয়ম রোধকল্পে এবং নদীর স্বাভাবিক প্রবাহ পুনরুদ্ধার ও নদীর যথাযথ রক্ষনাবেক্ষণ নিশ্চিতকল্পে বিধি বিধান রয়েছে। এটি এখন রাণীশংকৈল বাসীর জন্য সময়ের দাবী বলেও বক্তারা জানান।
ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধনে বক্তারা আরও  বলেন, কুলিক নদীর পানিকে পরিষ্কার ও বিশুদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাগ্রহন করতে হবে। এবং কুলিক নদীকে অতিথি পাখির নিরাপদ অশ্রয়স্থল অনিশ্চিত করতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/