• মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৭:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
অপসারণ হয়নি ঝড়ে পড়া বটগাছ, খোলা আকাশের নীচে দুই পরিবার বিষাক্ত প্রাণী থেকে বাঁচতে যে দোয়া পড়বেন আওয়ামী লীগ দেশের মানুষের কল্যাণের জন্য রাজনীতি করে— আ.লীগের প্লাটিনাম জুবিলিতে এলজিআরডি প্রতিমন্ত্রী বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধী সাম্প্রদায়িক অপশক্তির তোষণ না করলে দেশ আরও এগিয়ে যেতো : পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাতীয় শুদ্ধাচার পুরস্কার প্রাপ্ত হলেন ঠাকুরগাঁও জেলা কমান্ড্যান্ট মিনহাজ আরেফিন ঠাকুরগাঁওয়ে জনপ্রতিনিধি ও নাগরিকদের মধ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত মদিনায় কমিউনিটি সভা: সৌদি প্রবাসীদেরকে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিনন্দন, দিকনির্দেশনা ঠাকুরগাঁওয়ে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামী জাহাঙ্গীর আলম হাজতে কেন শহিদুলের বিরুদ্ধে দুদকে মামলা ? ঠাকুরগাঁওয়ে পাটচাষি সমাবেশ অনুষ্ঠিত

চাল-আটার বাজার চড়া

Reporter Name / ২০২ Time View
Update : শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২৩

শীতকালীন সবজির সরবরাহ বাড়ায় বাজারে তরিতরকারির দাম কমেছে। কমেছে মাছ-মাংসসহ মুরগি ও ডিমের দামও। তবে এখনো বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে চাল, আলু ও পেঁয়াজ। আটা-ময়দা ও চিনিতেও খরচের চাপ বেড়েছে।

গতকাল সাপ্তাহিক ছুটির দিন শুক্রবার রাজধানীর কদমতলী, মালিবাগ ও মগবাজার এলাকার বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ৮০ টাকার ঘর থেকে নেমে অধিকাংশ সবজির কেজি এখন চল্লিশ থেকে পঞ্চাশের ঘরে। বাজারে এখন প্রতি কেজি শিম বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা কেজি দরে। গোল বেগুন ৪০ থেকে ৫০ টাকা। সপ্তাহ দুয়েক আগেও ছিল ৮০ টাকার বেশি। লম্বা বেগুনের দাম কমে এখন ৩০ টাকায় নেমেছে। শীতের সবজি শালগমের কেজি এখন ৪০ থেকে ৫০ টাকা।

ফুলকপি ও বাঁধাকপি আগের মতোই ৪০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। কাঁচা মরিচের কেজি ১২০ টাকার আশপাশে। লাউয়ের দামও কিছুটা কমে পঞ্চাশের ঘরে। তবে পাকা টমেটোর দাম এখনো চড়া; প্রতিকেজি ১১০ থেকে ১২০ টাকা। কমেছে শাকের দামও। লাউ শাকের দাম তুলনামূলক বেশি হলেও লাল শাক, পালং শাক ও পুইশাকের দাম কমে এসেছে।

নতুন আলুর দাম শতকের ঘর থেকে নেমে ৮০ টাকা হয়েছে। কিন্তু পুরনো আলু এখনো বেশি দামেই বিক্রি হচ্ছে। গতকাল এক কেজি আলুর দাম ছিল ৫০ টাকা। বাজারে নতুন করে পাতাসহ পেঁয়াজ আসা শুরু হয়েছে। এতে অন্যান্য পেঁয়াজের দাম সেভাবে কমেনি। দেশি পেঁয়াজের কেজি এখনো ১১০ এবং আমদানিকৃত পেঁয়াজের কেজি ১০০ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে বিশ্ববাজারে গমের দাম বাড়ায় দেশের বাজারে আটা ও ময়দার দাম বেড়েছে। খোলা আটার কেজি এখন ৫০ টাকা। প্যাকেট আটার কেজি ৫৫ থেকে ৬০ টাকার মধ্যে। অন্যদিকে খোলা ময়দা ৬০ থেকে ৬৫ এবং প্যাকেট আটা ৬৫ থেকে ৭৫ টাকা বিক্রি হচ্ছে।

চিনির বাজারেও অস্থিরতা। খোলা চিনির কেজি ১৪০ থেকে ১৪৫ টাকা। এ ছাড়া বাজারে প্যাকেটজাত চিনির সরবরাহ নেই বললেই চলে। মিললে তার জন্য গুনতে হচ্ছে অতিরিক্ত টাকা।

চলতি বছরের আমন ধান কাটা শুরু হয়েছে। কিন্তু বাজারে চালের দাম কমেনি। মাসখানেক আগে খুচরা পর্যায়ে যতখানি বেড়েছিল, এখনো সেই দরেই বিক্রি হচ্ছে। মোটা চালের কেজি এখন ৫২ থেকে ৫৪ টাকা।

গরুর মাংসের দাম এলাকাভেদে কেজিতে প্রায় ২০০ টাকা পর্যন্ত কমেছে। ৭৮০ টাকা কেজির মাংস কোথাও ৬৫০, কোথাও ৬৩০ আবার কোথাও ৬০০ টাকাতেও মিলছে। কমেছে খাসির মাংসের দামও। ব্রয়লার মুরগির দামও কমে ১৭০ থেকে ১৭৫ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে। সাদা ও বাদামি রঙের ডিমের দাম আরেকটু কমে প্রতি ডজন যথাক্রমে ১১০ ও ১২০ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের দাম কমার প্রভাব পড়েছে মাছের দামেও। চাষের মাছের দাম কমেছে। পাঙাশের কেজি এখন ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা। চাষের তেলাপিয়া ২০০ থেকে ২২০ টাকা। মান ও আকারভেদে চাষের রুই মাছের কেজি পাওয়া যাচ্ছে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকার মধ্যে। চিংড়ির দামও কিছুটা কমেছে।

আরএম/টাঙ্গন টাইমস


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
https://slotbet.online/